বৃহস্পতি গ্রহে হিলিয়ামের বৃষ্টি

বৃহস্পতি গ্রহে হিলিয়ামের বৃষ্টি
বৃহস্পতির বায়ুমণ্ডল (ছবিতে) বেশিরভাগই হাইড্রোজেন এবং হিলিয়াম দিয়ে তৈরি। IMAGE PROCESSING BY PRATEEK SARPAL (CC NC-SA)

গত ২৭শে মে নেচার (Nature) ম্যাগাজিনের  রিপোর্টে বলা হয়েছে আমরা বৃহস্পতির বুকে যে দৈত্যাকার গ্যাস এর পুরো চাদর দেখতে পাই যার বেশিরভাগই তৈরি হাইড্রোজেন এবং হিলিয়াম দিয়ে । কিন্তু এই গ্যাস জায়ান্টের ভিতরে যে বিদ্যমান চাপ ও তাপমাত্রা রয়েছে তা হাইড্রোজেন ও হিলিয়াম কে পুরোপুরি মিশ্রিত করতে পারেনা।

যার ফলে অমিশ্রিত হাইড্রোজেন ও হিলিয়াম বৃহস্পতির বায়ুমণ্ডলের গভীরে গিয়ে পৃথক হয়। হিলিয়াম হাইড্রোজেন এর চেয়ে ভারী হওয়ায় তা ঘন ফোটায় রূপান্তরিত হয় এবং তা বৃহস্পতির বুকে বৃষ্টি হয়ে ঝড়ে পড়ে।

আরও পরুন,এলএসডি : ভয়াবহ ড্রাগ সম্পর্কে জেনে নিন

আমরা বৃহস্পতির মার্বেল সাদৃশ্য বাইরের অংশটি সম্পর্কে বেশ পরিচিত। কিন্তু মেঘের উপরিভাগের নিচে কি ঘটে তা পরিষ্কার নয়।

বৃহস্পতি গ্রহে হিলিয়ামের বৃষ্টি
বৃহস্পতি গ্রহ

এর সমাধান পেতে গবেষকরা একটা পরীক্ষার ডিজাইন করেছে । যেখানে পৃথিবীর বায়ুমন্ডলের চাপের সাথে কয়েক হাজার ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রা যোগ করে তা ২ মিলিয়ন গুন চাপ তৈরি করা হয়। যা বৃহস্পতির দৈত্যকার গ্যাসের অভ্যন্তরীণ স্তর গুলোর মত।

ক্যালিফোর্নিয়ার লরেন্স লিভারমোর ন্যাশনাল ল্যাবরেটরির পদার্থবিজ্ঞানী মরিয়াহ মিলস বলেন ”আমরা বৃহস্পতির ভিতরের পরিস্থিতি পুনরায় তৈরি করেছি”।

মিলন এবং তাঁর সহকর্মীরা দুটি হীরার মধ্যে হিলিয়াম ও হাইড্রোজেন ঢেলে একটি শক্তিশালী লেজার দিয়ে চাপ ও প্রচণ্ড তাপ প্রয়োগ করে।

বৃহস্পতি গ্রহে হিলিয়ামের বৃষ্টি
বৃহস্পতি গ্রহে হিলিয়ামের বৃষ্টি

গবেষকরা দেখতে পান চাপ ও তাপ বাড়ার সাথে সাথে উপাদানগুলোর স্বাভাবিক প্রতিবিম্বিত হওয়ার হার আকস্মিকভাবে বৃদ্ধি পায়। এটি থেকে এই সিদ্ধান্তে আসা যায় যে হিলিয়াম ও হাইড্রোজেন একে অপর থেকে পৃথক হচ্ছিল যে এই পরিস্থিতিতে একটি তরল ধাতুতে পরিণত হয়। আবার অপরদিকে তাপমাত্রা কমার সাথে সাথে তা আবার নিঃসৃত হতে শুরু করে। গবেষকরা হিসাব করে দেখেছে যে হাইড্রোজেন ও হিলিয়াম বৃহস্পতির মেঘের উপরিভাগ থেকে প্রায় ১১,০০০ হাজার কিলোমিটার নিচে ও ২২,০০০ কিলোমিটার গভীরে গিয়ে পৃথক হয়।

Written by Palash Khalashi

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here