তিমির আক্রমণ থেকে বেচে ফেরা (ভিডিও সহ)

তিমির আক্রমণ
Image collected from: The Guardian

সম্প্রতি ক্যালিফোর্নিয়ায় দুই জন কায়াকা একটি দৈত্যাকার তিমির আক্রমণ এর সিকার হন। আক্রমণের ভিডিও ধারণ নিশ্চিত করে যে তারা দুজন অক্ষত অবস্থায় ছিল।কায়াকার দুজন মহিলা ছিলেন।  তাদের একজনের নাম লিজ কাট্রিয়াল এবং অন্যজন জুলি ম্যাকসরলি। 

সেখানকার সংবাদ মাধ্যম KMPH এর সাক্ষাৎকার এ লিজ কাট্রিয়াল বলেন,” আমি ভাবছিলাম, আমি হয়তো মারা গেছি। আমি সত্যিই মারা গেছি। আমি ভাবলাম এই বুঝি দানবটা আমার উপর পড়ল। তৎক্ষণাৎ আমি অনুভব করলাম আমি পানির নিচে আছি” 

কাট্রিয়াল এবং তার বান্ধবী জুলি ম্যাকসরলি ক্যালিফোর্নিয়ার সান লুইস অবিসপো উপসাগরে কায়াক চালাচ্ছিলেন। হঠাৎ করে সেখানে একটি বড় দানবীয় তিমি আক্রমণ করে বসে।

যারা সমুদ্রকে কাছ থেকে উপভোগ করতে চান তাদেরকে স্থানীয় নিরাপত্তা কর্মকর্তারা সতর্ক করে দিয়েছেন। তারা বলেছেন ছোট ছোট মাছের বিশাল ঝাক থেকে দূরে থাকতে। কেননা সেখানে দৈত্যাকার তিমি গুলো খাদ্যের সন্ধানে আসে। 

সংবাদ সাক্ষাৎকারে জুলি ম্যাকসরলি জানান,” আমি দেখলাম একটি মাছের বড় ঝাঁক আসছে। পরক্ষণে দেখি বিশাল তিমি ভেসে আসছে। আমি ভাবলাম, ও না, এটি অনেক কাছে এসে গেছে। “বুঝতে পারলাম এটি হতে পারে তিমির আক্রমণ।

জুলি ম্যাকসরলি পুনরায় জানান, ” আমি হঠাৎ চেতনায় ফিরলাম। পরে অনুভব করলাম আমি পানিতে নিমজ্জিত আছি। চেষ্টা করলাম ভেসে ওঠার। ভেসে উঠে আমার ফোন দিয়ে তিমি এর ভিডিও করলাম।” 

কাট্রিয়াল জানান,” আমাদের এমন পরিস্থিতি দেখে তিরে থাকা কোস্টগার্ড এবং নিরাপত্তা কর্মীরা অন্য আরেকটি কায়াক নিয়ে আমাদের উদ্ধারের জন্য তাৎক্ষণাৎ সেখানে উপস্থিত হয়।

তারা ভেবেছিল হয়তো আমাদের কোন ভুলের কারণে আমরা আক্রমণের শিকার হয়েছি। কিন্তু পরবর্তীতে দেখা যায় আমাদের কায়কের ঠিক নিচে মাছের একটি ছিল। সেটি খাওয়ার জন্যই তিনি আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠে। যার প্রভাব আমাদের উপর পড়ে। তবে আমরা খুবই খুশি যা আমাদের কোন ক্ষতি হয়নি।”

পরবর্তীতে কাট্রিয়াল এবং ম্যাকসরলি নিজেরাই কায়াক চালিয়ে পাড়ে ফিরে আসতে সক্ষম হন। তবে স্বস্তির কথা এটাই যে কারো কোনো মারাত্মক ক্ষতি হয়নি। 

ক্যালিফোর্নিয়াতে বছরে প্রায় ২০০ জন মারা যায় তিমির আক্রমণে। তিনি মূলত গভীর জলের প্রাণী। কিন্তু কখনো কখনো খাবারের সন্ধানে সমুদ্রের উপরিভাগে চলে আসে। যার ফলে প্রায়ই শোনা যায় তিমির আক্রমণে পর্যটকদের প্রাণহানির কথা।

Video: Kellie Balentine

 

 

এইরকম আর খবর পেতে ক্লিক করুন এখানে।

অথবা ঘুরে আসতে পারেন আমাদের ফেসবুক পেজ থেকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here